মঙ্গলবার, ১৮ ফেব্রুয়ারী ২০২০, ১২:৪৩ অপরাহ্ন

শিরোনাম :
বিয়ের অনুষ্ঠানে খারার দিতে দেরি হওয়ায় মারামারিতে বিয়ে পন্ড প্রচণ্ড আর্থিক ক্ষতির মুখে বাংলাদেশের কাঁকড়া চাষিরা একুশে বই মেলা ২০২০ সালে ডা.এম এ মাজেদের স্বাস্থ্য বিষয়ক বই হোমিওসমাধান প্রকাশিত হয়েছে আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে দুপক্ষের গোলাগুলিতে সাবেক কাউন্সিলর নিহত চীনের উহানের উচাং হাসপাতালের প্রধান ডা. লিউ ঝিমিং মারা গেছেন দুর্নীতি করতে দেব না, দুর্নীতি করব না এটাই হোক ছাত্রলীগের স্লোগান-মাশরাফি চাঁপাইনবাবগঞ্জ শিবগঞ্জে মোটরসাইকেল মুখোমুখী সংঘর্ষে আহত ৪ পরিকল্পনামন্ত্রীর কচুরিপানা খাওয়া বিষয়ে অধ্যাপক ড. আসিফ নজরুলের সমালোচনা তসলিমা নাসরিনের বোরখা নিয়ে মন্তব্যের কড়া জবাব দিলেন এআর রাহমানের মেয়ে খাতিজা জনপ্রিয় অভিনেতা তাপস পাল আর নেই

মাত্র নয় মাস চালাতেই ডাকসুর খরচ ৮৭ লাখ টাকা

worksfare LTD
  • Update Time : ১০ ফেব্রুয়ারী, ২০২০
  • ৩৮ Time View

মাত্র নয় মাস চালাতেই ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় কেন্দ্রীয় ছাত্র সংসদের (ডাকসু) খরচ হয়েছে ৮৭ লাখ ১৭ হাজার ৩৭৭ টাকা। এর মধ্যে নানা উদ্যোগ ও বিভিন্ন অনুষ্ঠানের খরচ হিসেবে তহবিল থেকে ৮৩ লাখ ৫১ হাজার ৩০৪ টাকা উঠিয়েছেন সংগঠনের নির্বাচিত নেতারা।

এ ছাড়া কার্যালয় ব্যবস্থাপনা খাতে ৩ লাখ ৬৬ হাজার ৭৩ হাজার টাকা খরচ করা হয়েছে। গত শনিবার ডাকসুর চতুর্থ কার্যনির্বাহী সভা উপলক্ষে সংগঠনের প্রশাসনিক শাখার প্রকাশিত হিসাব থেকে এ তথ্য জানা যায়। ডাকসুর বর্তমান কমিটির জন্য গত বছর পাস হওয়া বাজেটের আকার ছিল ১ কোটি ৮৯ লাখ টাকা।প্রকাশিত হিসাব অনুযায়ী, গত বছরের মার্চে নির্বাচনের পর থেকে ডিসেম্বর পর্যন্ত নয় মাসে ডাকসুর ক্রীড়া সম্পাদক শাকিল আহমেদ তহবিল থেকে নিয়েছেন ১৯ লাখ ৮১ হাজার, সাহিত্য সম্পাদক মাজহারুল কবির ১৩ লাখ ৭১ হাজার ৮৩৪, সংস্কৃতিবিষয়ক সম্পাদক আসিফ তালুকদার ১২ লাখ ৬৫ হাজার, বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি সম্পাদক আরিফ ইবনে আলী ৯ লাখ ৯৯ হাজার টাকা, স্বাধীনতা সংগ্রাম ও মুক্তিযুদ্ধবিষয়ক সম্পাদক সাদ বিন কাদের চৌধুরী ৭ লাখ ৮২ হাজার ১২০, আন্তর্জাতিক বিষয়ক সম্পাদক শাহরিমা তানজিন ৬ লাখ ৭১ হাজার ৯০০, সমাজসেবা সম্পাদক আখতার হোসেন ৪ লাখ ৫০ হাজার টাকা এবং ছাত্র পরিবহন সম্পাদক শামস-ঈ-নোমান ৫৮ হাজার ৭০০ টাকা। সদস্যদের মধ্যে রকিবুল ইসলাম
২ লাখ ২০ হাজার টাকা, সাইফুল ইসলাম ১ লাখ, মুহা. মাহমুদুল হাসান সাড়ে ৯৪ হাজার, তানভীর হাসান ৯০ হাজার, রাইসা নাসের ৭৪ হাজার ৫০, রাকিবুল হাসান ৬১ হাজার ৭০০, ফরিদা পারভীন সাড়ে ৬১ হাজার, যোশীয় সাংমা ৪০ হাজার ও রফিকুল ইসলাম ৩০ হাজার টাকা নিয়েছেন।

তবে সদস্যদের জন্য আলাদা কোনো বাজেট না থাকায় এ টাকা তারা তুলেছেন সাধারণ সম্পাদক (জিএস) গোলাম রাব্বানীর তহবিল থেকে।

গত বছরের ৩০ মে মাসে পাস হওয়া ডাকসুর বাজেটে আনুষঙ্গিক খরচ হিসেবে সহসভাপতিকে (ভিপি) বরাদ্দ দেওয়া হয়েছিল ৫ লাখ টাকা। আর জিএসকে তিন খাতে মোট ৫২ লাখ টাকা বরাদ্দ দেওয়া হয়। এর মধ্যে অভিষেক অনুষ্ঠানের খরচ ৩০ লাখ, সাধারণ অনুষ্ঠান বাবদ ১৭ লাখ ও আনুষঙ্গিক খরচ হিসেবে ৫ লাখ টাকা। তবে ৮৩ লাখ টাকা খরচের যে হিসাব দিয়েছে, তাতে দেখা যায়, ভিপির পাশাপাশি জিএসও তার বরাদ্দকৃত অর্থ নিজে তোলেননি।

ভিপি নূর তার জন্য বরাদ্দকৃত অর্থ ব্যয় না হওয়ার ক্ষেত্রে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের অনুমোদন না পাওয়াকে কারণ দেখিয়েছেন। তবে কোষাধ্যক্ষ অধ্যাপক শিবলী রুবাইয়াতুল ইসলাম সেই অভিযোগ প্রত্যাখ্যান করেছেন।

অন্যদিকে বাজেটে স্বাধীনতা সংগ্রাম ও মুক্তিযুদ্ধবিষয়ক সম্পাদককে ১০ লাখ, বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি সম্পাদককে ১৫ লাখ, কমন রুম ও ক্যাফেটেরিয়া সম্পাদককে ১০ লাখ, আন্তর্জাতিক বিষয়ক সম্পাদককে ১৫ লাখ, সাহিত্য সম্পাদককে ১৫ লাখ, সংস্কৃতিবিষয়ক সম্পাদককে ১৫ লাখ, সমাজসেবা সম্পাদককে ১৩ লাখ, ক্রীড়া সম্পাদককে ২০ লাখ এবং ছাত্র পরিবহন সম্পাদককে ১৫ লাখ টাকা বরাদ্দ করা হয়। এর বাইরে ডাকসু কার্যালয় ব্যবস্থাপনা খাতে ৪ লাখ টাকা বরাদ্দ রাখা হয়েছিল।

ডাকসুর বাজেটটি ভিপি, জিএসসহ ৯ জন সম্পাদকের মধ্যে ভাগ করে দেওয়া হয়েছে। তবে ডাকসুর এজিএস ও ১৩ জন সদস্যকে কোনো বাজেট দেওয়া হয়নি।
প্রায় তিন দশক পর গত বছরের ১১ মার্চ নির্বাচনের মধ্য দিয়ে বর্তমান ডাকসু গঠিত হয়। ভিপি ও সমাজকল্যাণ সম্পাদক বাদে বাকি প্রতিটি পদেই জয়ী হন ছাত্রলীগের নেতারা।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *


More News Of This Category