বুধবার, ০১ এপ্রিল ২০২০, ১২:২২ পূর্বাহ্ন

শিরোনাম :

তেলাকুচা পাতার অনেক গুণ

worksfare LTD
  • Update Time : ১৯ ফেব্রুয়ারী, ২০২০
  • ১০৭ Time View

তেলাকুচা এক ধরনের লতা জাতীয় গাছ,বাংলাদেশের সব জায়গায় এটি পাওয়া যায়।

ডায়বেটিস হলে তেলাকুচার কান্ড সমেত পাতা ছেঁচে রস তৈরি করে আধাকাপ পরিমাণ প্রতিদিন সকাল ও বিকালে খেতে হবে।তেলাকুচার পাতা রান্না করে খেলে ও ডায়াবেটিস রোগে উপকার হয় ।

জন্ডিস হলে তেলাকুচার মূল ছেঁচে রস তৈরী করে ।প্রতিদিন সকালে আধাকাপ পরিমাণ খেতে হবে ।

গাড়িতে ভ্রমণের সময় বা অনেকক্ষণ পা ঝুলিয়ে বসলে পা ফুলে যায় । একে শোথ রোগ বলা হয় । তেলাকুচার মূল ও পাতা ছেঁচে এর ৩-৪ চা চামচ প্রতিদিন সকালে ও বিকালে খেতে হবে ।

বুকে সর্দি বা কাশি বসে যাওয়ার কারণে শ্বাসকষ্ট হলে তেলাকুচার মূল ও পাতার রস হালকা গরম করে ৩-৪ চামচ পরিমাণ ৩ খেকে সাত দিন প্রতিদিন সকালে ও বিকালে খেতে হবে ।

শ্লেস্মাকাশি হলে শ্লেষ্মা তরল করতে এবং কাশি উপশমে ৩-৪ চা চামচ তেলাকুচার মূল ও পাতার রস হালকা গরম করে আধা চা চামচ মধু মিশিয়ে ৩ থেকে ৭ দিন প্রতিদিন সকালে বিকালে খেতে হবে ।

শ্লোষ্মাজ্বর হলে ৩-৪ চা চমচ তেলাকুচার মূল ও পাতার রস হালকা গরম ২-৩ দিন সকাল বিকাল খেতে হবে । এ ক্ষেত্রে তেলাকচুর পাতা পাটায় বেটে রস করতে হবে ।

সন্তান প্রসবের পর অনেকের স্তনে দুধ আসে না বা শরীর ফ্যাকাশে হয়ে যায় । এ অবস্থা দেখা দিলে ১ টা করে তেলাকুচা ফলের রস হালকা গরম করে মধুর সাথে মিশিয়ে তেলাকচুর পাতা  সকাল বিকাল এক সপ্তাহ খেতে হবে ।

ফোড়া ও ব্রণ সমস্যায় তেলকুচা পাতার রস বা পাতা ছেঁচে ফোড়া ও ব্রণে প্রতিদিন সকাল বিকাল ব্যবহার করতে হবে ।

প্রায়ই আমাশয় হতে থাকলে তেলাকুচার মূল ও পাতার রস ৩-৪ চা চামচ ৩ থেকে ৭ দিন প্রতিদিন সকালে ও বিকালে খেতে হবে।

সর্দিতে মুখে অরুচি হলে তেলাকুচার পাতা একটু সিদ্ধ করে পানিটা ফেলে দিয়ে ঘি দিয়ে শাকের মত রান্না করতে হবে । খেতে বসে প্রথমেই শাক খাওয়াতে রুচি আসবে ।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *


More News Of This Category