বুধবার, ২৮ অক্টোবর ২০২০, ০৫:০৫ অপরাহ্ন

শিরোনাম :
পদ্মার বুকে জেগে উঠছে বালুচর মুক্তিযুদ্ধের জীবন্ত কিংবদন্তী বঙ্গবীর কাদের সিদ্দিকীর জন্মদিনে ন্যাপ মহাসচিবের শুভেচ্ছা রাবির ভর্তি পরীক্ষায় সেকেন্ড টাইমারদের সুযোগ দেয়ার চিন্তা, পরীক্ষা অফলাইনে আগের নিয়মেই মহানবীকে (সা:) অবমাননায় বিশ্ব মুসলিমকে ক্ষুদ্ধ করেছে ফ্রান্স : ন্যাপ  ধর্মীয় অনুভূতিতে আঘাত, জবি শিক্ষার্থী তিথি সরকারকে সাময়িক বহিষ্কার বাংলার বাঘ শেরে বাংলা এ কে ফজলুল হক একটি অবিস্মরণীয় নাম সুদকারবারীর মিথ্যা মামলায় কোলের শিশু আদালতে রাজনীতিকে পরিশীলিত, পরিমার্জিত ও সৃজনশীল করা দরকার : শ. ম রেজাউল করিম পদ্মাসেতুর নাম ‘শেরে বাংলা’র নামে নামকরন করুন : সরকারের প্রতি মোস্তফা সাংসদ হাজী সেলিমের ছেলে এরফান সেলিম গ্রেফতার

ভৈরবে এবার মহিষের পাল ডাকাতি

প্রকাশক
  • Update Time : শনিবার ১৮ জানুয়ারি, ২০২০
  • ১২৬১ Time View

এম আর ওয়াসিম,কিশোরগঞ্জ প্রতিনিধি: চুরি, ছিনতাই রাস্তায় ডাকাতির পর কিশোরগঞ্জের ভৈরবে এবার মহিষের পালে ডাকাতির ঘটনা ঘটেছে। ভৈরব-কালীপুর-আগানগর সড়কে রামসংকরপুর ও চাঁনপুর কুদাঁলকাটি নদীর ব্রীজ এলাকায় মহিষের পালের ৩টি মহিষ ডাকাতি হয়।

মৌলভীবাজার জেলার বাবলা বাজার এলাকা থেকে ৫টি মহিশ ক্রয় করে ভৈরবের জগমোহনপুর আসার পথে এই ঘটনা ঘটে। আজ শনিবার ভূক্তভোগী জজ মিয়া ও গোলাপ মিয়া ডাকাতির ঘটনা সংবাদিকদের অবগত করে।

জগমোহনপুর গ্রামের মৃত ইব্রাহিম মিয়ার ছেলে জজ মিয়া (৫০) ও একই গ্রামের মরম আলীর পুত্র গোলাপ মিয়া (৬৫) গত সোমবার মৌলভীবাজার জেলার বাবলা বাজার থেকে ৫৫হাজার টাকা করে, ৫টি মহিশ ২লাখ ৭৫হাজার টাকা দিয়ে ক্রয় করে, রাত ১১টায় একটি পিকাব নিয়ে মহিষ বোঝাই করে ভৈরবে মধ্য রাতে পৌঁছায়। ভৈরব থেকে আগানগর ইউনিয়নের জগমোহনপুরের উদ্দেশ্যে ২টা ৩০মিনিটে রওনা হয়।

ভৈরব পৌর এলাকার রামসংকরপুর এলাকায় পৌছালে মহিষ বোঝাই পিকাপটিকে এলোপাতারি ঢিল ছুরে মারে। তখন পিকাবটিকে আটকিয়ে মুখোঁশদারী ৬জন ডাকাতদল দেশীয় অস্ত্র দাঁ, ছুরি, রামদাঁ দিয়ে হত্যার হুমকি দিয়ে পিকআপটিকে কুদাঁলকাটি নদীর ব্রীজের পূর্ব প্রান্তে চাঁপুর এলাকায় নিয়ে যাই।

ডাকাতরা পিকআপথেকে ৩টি মহিষ নামিয়ে শিমুলকান্দি ইউনিয়নের রাজাকাটা হাওড় দিয়ে পালিয়ে যায়। জগমোহনপুর গ্রামের জজ মিয়া জানান, গত বছর আমি ১২টি মহিষ লালন পালন করে ঈদুল আযহার সময় বিক্রি করে ২লাখ ৫০হাজার টাকা লাভবান হয়েছিলাম। তারই উদ্দেশ্যে এই বার মৌলভী বাজার থেকে ৫টি মহিষ ক্রয় করে আনতে যায়, উদ্দেশ্যে ছিল পাঁচ থেকে ছয় মাস লালন পালন করে লাভের আশায় ঈদুল আযহার সময় বিক্রি করে দিব। ডাকাতরা আমার এই আশা পূরণ করতে দিল কয়।

রাস্তার মাঝে হঠাৎ করে হানা দিয়ে আতংকায় আমার সর্বস্ব নিতে জানের ভয় দেখিয়ে ৩টি মহিষ নিয়ে ডাকাতরা পালিয়ে যাই। প্রচন্ড ঘন কুয়াশার কারণে ডাকাতদল সহজেই পালিয়ে যতে সক্ষম হয়। ইব্রাহিম মিয়া আরো জানায়, ডাকাতির ঘটনার পর ভৈরবের বিভিন্ন গ্রামগুলিতে অনেক খোঁজাখুজিঁ করেছি কিন্তু কোন সন্ধান পাইনি। আগানগর ইউনিয়নের চেয়ারম্যানকে এই ব্যপারে অবগত করেছি। আইনি ঝামেলার ভয় পাই, তাই থানা পুলিশ করিনি।

ভৈরব থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মোঃ শাহীন জানান, আমাদের থানায় মহিষের পাল ডাকাতির কোন ঘটনার খবর আসেনি এবং আমাদের থানায় কাউকেই এই ব্যাপারে অবগত হয়নি। যদি এই রকম কোন ঘটনার সত্যতা পাওয়া যায় তবে অবশ্যই আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে।

Please Share This Post in Your Social Media


More News Of This Category